মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

সেবা ও সেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা

সেবার ধরন

সেবা

সেবা প্রদান/প্রাপ্তীর ক্ষেত্রে অসুবিধা/ চ্যালেঞ্জ সমূহ

নাগরিক পযার্য়ে

সরকারী পযার্য়ে

প্রশিক্ষণ

গ্রাম ভিত্তিক মৌলিক প্রশিক্ষণ (ভিডিপি পুরুষ ও মহিলা)

অনেক গ্রামে প্রশিক্ষণ স্থান না থাকায় গ্রামের প্রভাবশালী ব্যক্তির বাড়ীতে প্রশিক্ষণার্থীরা মাটিতে বসে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে।

 

প্রশিক্ষণার্থীরা প্রশিক্ষণ নেওয়ার পর অর্থের অভাবে আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে পারছে না।

 

সরকারী সুস্পষ্ট নির্দেশনা থাকা সত্বেও সরকারী তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেনীর চাকুরীতে ১০% আনসার ভিডিপি সদস্য-সদস্যাদের নিয়োগে সবক্ষেত্রে পুরোপুরি সুবিধা পাচ্ছে না।

 

স্থানীয় সরকারের উন্নয়নমূলক কাজের তত্ত্বাবধানের ক্ষেত্রে ভিডিপি সদস্য-সদস্যাদের অংশীদারিত্ব সবক্ষেত্রেই নিশ্চিত হচ্ছে না।

 

Fair Price Card প্রাপ্তির ক্ষেত্রে ভিডিপি সদস্য-সদস্যাদের জন্য ১৫% কোটা বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই বাস্তবায়িত হয় না।

 

পৃখিবীর বেশীরভাগ দেশেই স্বেচ্ছাসেবক সংগঠনের সদস্য-সদস্যাদের শিক্ষা,চিকিৎসা, যাতায়াত প্রভৃতি ক্ষেত্রে ভর্তুকি প্রদান করার জন্য ভর্তুকি কার্ড প্রদান করা হয়। ভিডিপি সদস্য-সদস্যারা সে সুবিধা পাচ্ছে না।

 

 

সরকারী সার্কুলার থাকা স্বত্বেও ভিডিপি সদস্য-সদস্যারা সন্দেহের বশবর্তী হয়ে অর্থাৎ ৫৪ ধারায় কোন ওয়ারেন্ট ছাড়াই জেলা কমান্ড্যান্ট/সহকারী জেলা কমান্ড্যান্ট এর পূবানুর্মতি ছাড়াই গ্রেপ্তারের মাধ্যমে হয়রানী হচ্ছে।

 

প্রশিক্ষণের জন্য নির্দিষ্ট আবেদন ফরম ও প্রশিক্ষণ গাইড লাইন সমৃদ্ধ নির্দেশিকা পাচ্ছে না। ইউনিয়ন দলনেতা/দলনেত্রীর সাথে যোগাযোগ সহজ হচ্ছে না।

 

অনেক গ্রামেই স্কুল কলেজ না থাকায় প্রশিক্ষণার্থীদের জন্য সুব্যবস্থা করা যাচ্ছে না।

 

 

দেশের সকল উপজেলায় আনসার ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকের শাখা না থাকায় আর্থিক সহায়তা প্রদান করা যাচ্ছে না।

 

সংশ্লিষ্ট বিভাগের উদাসীনতার কারণে সম্ভব হচ্ছে না।

 

 

 

 

সংশ্লিষ্ট বিভাগের উদাসীনতার কারণে সম্ভব হচ্ছে না।

 

 

 

সংশ্লিষ্ট বিভাগের উদাসীনতার কারণে সম্ভব হচ্ছে না।

 

 

 

সরকারের উদ্যোগ প্রয়োজন।

 

 

 

 

 

 

 

 

সংশ্লিষ্ট বিভাগের উদাসীনতা।

 

 

 

 

 

 

দেশের প্রতিটি মেট্রোপলিটন শহরে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তার অফিস নাই। উপজেলা অফিসের জনবল কাঠামো খুবই দুবর্ল। ইউনিয়ন দলনেতা/দলনেত্রীরা সাধারণত ইউনিয়ন কমপ্লেক্সে বসে। দেশের অনেক ইউনিয়নেই ইউনিয়ন কমপ্লেক্স নেই। যেসব ইউনিয়নে ইউনিয়ন কমপ্লেক্স আছে সেখানেও তাদের বসার মত সরঞ্জামাদি নাই। তাদের কাজের জন্য স্টেশনারী দ্রব্যাদি কিছুই বরাদ্দ নাই। ইউনিয়ন দলনেতা/দলনেত্রীদের মাসিক সম্মানী অপ্রতুল (মাসিক ৬২৫ টাকা) এবং তাদের জন্য মোবাইল ফোন ও মাসিক মোবাইল বিল বরাদ্দ নাই  অর্থাৎ সরকারী সুযোগ সুবিধা ‌কম হওয়ায় সার্ভিসের মান নিম্ন। ভিডিপি সদস্য-সদস্যাদের তলিকা প্রস্তুতকরণ, হালনাগাদকরণ এবং সংরক্ষণের কাজ সুষ্ঠভাবে করা যাচ্ছে না।


Share with :

Facebook Twitter